জামায়াতের উইকেট নেওয়ার চেষ্টায় আওয়ামী লীগ

বিএনপি চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা ও সাবেক বিরোধীদলীয় চিফ হুইপ জয়নুল আবদিন ফারুক বলেছেন, আওয়ামী লীগ বলছে জামায়াতের উইকেটের পতন হয়েছে। আমি বলব জামায়াতের উইকেটের পতন হয়নি, জামায়াতের উইকেট আওয়ামী লীগ নেওয়ার চেষ্টা করছে।

গতকাল বাংলাদেশ প্রতিদিনের সঙ্গে একান্ত সাক্ষাৎকারে তিনি এ কথা বলেন। জয়নুল আবেদিন ফারুক বলেন, নির্বাচনকালীন নিরপেক্ষ সরকারব্যবস্থা আদায়ের দাবিতে বিএনপি দেশের প্রায় সব গণতান্ত্রিক রাজনৈতিক দলের সঙ্গে সংলাপ করে চলেছে।

এ অবস্থায় বিএনপির নেতৃত্বাধীন ২০-দলীয় জোট থেকে কোনো দলকে বাদ দেওয়ার সিদ্ধান্ত নেবে না। জামায়াত আনুষ্ঠানিকভাবে জোট ছেড়ে যাওয়ার ঘোষণা দেয়নি। যেহেতু আনুষ্ঠানিকভাবে জোট ছাড়েনি, তাই বিএনপির পক্ষ থেকে এ নিয়ে আনুষ্ঠানিক বক্তব্য দেওয়ার কিছু নেই।

তিনি বলেন, জিয়াউর রহমানের প্রতিষ্ঠা করা দল বিএনপি অনেক অন্যায়-অত্যাচার খুন-গুমের শিকার হয়ে বর্তমান সরকারের বিরুদ্ধে লোহার মতো শক্ত হয়ে টিকে আছে। এত অত্যাচার-নির্যাতনের পরও দলের একজন নেতা-কর্মীও অন্য কোনো দলে যোগ দেননি।

ক্ষমতায় না থাকলেও জনগণের অধিকার, গণতন্ত্র, সংবাদপত্রের স্বাধীনতা, বিচার বিভাগের স্বাধীনতা, সংবিধান সমুন্নত রাখা, দ্রব্যমূল্যের ঊর্ধ্বগতি, তেল-গ্যাসের মূল্যবৃদ্ধি, গুম-হত্যার বিরুদ্ধে গণআন্দোলনে বিএনপি সবসময় সোচ্চার থাকে।

প্রশাসন ও সরকারের রক্তচক্ষু উপেক্ষা করে সাহসের সঙ্গে বিএনপি ঘোষিত কর্মসূচি পালন করছে। তিনি বলেন, আগামী জাতীয় সংসদ নির্বাচনে বিএনপিকে অংশ নেওয়ার ক্ষেত্রে অহেতুক চেষ্টা করবেন না। আপনাদের মিথ্যা আশ্বাসে বিএনপি কোনো নির্বাচনে অংশ নেবে না।

বিএনপি নির্বাচনকালীন নিরপেক্ষ সরকারব্যবস্থা আদায় করেই দেশবাসীকে সঙ্গে নিয়ে ভোটে যাবে। যত চেষ্টা করার করেন। বিএনপিকে ভাঙা যাবে না, কোনো লাভও হবে না। বিএনপি মচকাবে তবু ভাঙবে না। তিনি বলেন, যারা বিএনপির আন্দোলন দেখেন না, তারা এসে দেখে যান। সারা দেশে আন্দোলন হচ্ছে।

অতীতেও কোনো স্বৈরাচার টিকতে পারেনি। এই অনির্বাচিত সরকারও আন্দোলন থামাতে পারবে না। তিনি বলেন, সরকার ইচ্ছাকৃতভাবে দেশের মানুষের সব সম্পদ লুটপাট করে বিদেশে পাচার করতে সিন্ডিকেটের মাধ্যমে দ্রব্যের মূল্যবৃদ্ধি করছে।

সরকার খালেদা জিয়াকে বিনা চিকিৎসায় তিলে তিলে মেরে ফেলতে চায়। খালেদা জিয়া এ সরকারের পতন না দেখে মৃত্যুবরণ করবেন না। তিনি আবারও রাষ্ট্র পরিচালনার দায়িত্ব নেবেন। অন্যায়ভাবে মানুষকে বেশি দিন দাবিয়ে রাখা যায় না। যে যত কথাই বলুক এ সরকার আর টিকতে পারবে না।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *